‘থাইল্যান্ডের সঙ্গে বিনিয়োগ ঘাটতি কমাতে হবে’

প্রতিনিধি | অর্থনীতি

বুধবার ২৯ মার্চ ২০১৭|১১:৪০:৩০ মি.

cআজ বুধবার রাজধানীর হোটেল সোনারগাঁওয়ে থাই পণ্য সমাহারের মেলা ‘থাইল্যান্ড উইক ২০১৭’এর উদ্বোধনকালে তিনি এসব কথা বলেন।

ডিপার্টমেন্ট অব ইন্টারন্যাশনাল ট্রেড প্রমোশন (ডিআইপিটি), বাণিজ্য মন্ত্রণালয়, রয়েল থাই সরকার ও বাংলাদেশে থাই অ্যামবাসির যৌথ উদ্যোগে এ মেলার আয়োজন করা হয়েছে।

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, থাইল্যান্ড থেকে আমাদের দেশে প্রতি বছর প্রায় ৩০০ মিলিয়ন মার্কিন ডলারের পণ্য আমদানি করা হচ্ছে। এর বিপরীতে আমাদের দেশ থেকে থাইল্যান্ডে বছরে মাত্র ৩১ মিলিয়ন মার্কিন ডলারের পণ্য রপ্তানি হয়। দুই দেশের মধ্যে দ্বি-পাক্ষিক বাণিজ্য ব্যবধান অনেক বেশি। তাই এটি দূর করতে হবে।

থাই বিনিয়োগকারীদের সঙ্গে বাংলাদেশের ব্যবসায়ীদের যোগাযোগ বাড়ানোর কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, দু’দেশের বিনিয়োগ ঘাটতি কমানোর জন্য থাই বিনিয়োগকারীদের সঙ্গে যোগাযোগ বৃদ্ধি করা দরকার।

এসময় ১০০টি বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চলের যেকোনো একটিতে থাই বিনিয়োগকারীদের বিনিয়োগের আহ্বানও জানান বাণিজ্যমন্ত্রী।

উদ্বোধানী অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশে নিযুক্ত থাই এ্যাম্বাসেডর প্যানপিমোন সুয়ানাপং, দি ফেডারেশন অব বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্স এ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজের (এবিসিসিআই) পরিচালক মনোয়ারা হাকিম, থাই বাণিজ্যমন্ত্রীর মুখপাত্র সুবসেক ড্যাংবুন রুয়েং প্রমুখ।

প্রসঙ্গত, সপ্তমবারের মতো আয়োজিত এ মেলায় সেবা, কসমেটিক, সৌন্দর্যবর্ধক, গার্মেন্টস ও ফ্যাশন সামগ্রী, ইলেক্ট্রনিক্স পণ্য, স্পা, জুয়েলারি, কনফেকশনারি, খাবার ও পানিয়, ভারী শিল্প, গৃহস্থালীসহ আনুষঙ্গিক পণ্যের প্রদর্শনী হবে।

মেলায় থাই পণ্যের উৎপাদক এবং রপ্তানিকারকরা সরাসরি অংশগ্রহণ করবেন। যা প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে ৮টা পর্যন্ত উন্মুক্ত থাকবে। তবে ২২ ও ২৩ মার্চ শুধু ব্যবসায়ীদের জন্য এবং ২৪ ও ২৫ মার্চ সবার জন্যই মেলা উন্মুক্ত থাকবে।

পাঠকের মন্তব্য Login Registration